বিশ্বরেকর্ডের অ'পেক্ষায় এগারো বছরের কি'শোরী

স্কাই ব্রাউনের বয়স মাত্র ১১ বছর। এ বয়সে সবাই সাধারণত খেলাধুলা নিয়েই মেতে থাকে। ব্যতিক্রম নন ব্রাউনও। তবে এ বয়সেই স্কেটবোর্ডিংয়ে অ'প্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছেন এই কি'শোরী। আসছে টোকিও অলিম্পিকে বিশ্বের সেরা নারী স্কেটবোর্ডার হিসেবে তুলে ধরতে চান নিজের প্রতিভাকে। সেখানে কোনো পদক পেলে কনিষ্ঠতম অলিম্পিক অ্যাথলেট হিসেবে পদক জয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়বেন তিনি।

অবশ্য নিজ দেশ যু'ক্তরাজ্যের হয়ে এরই মধ্যে রেকর্ডের খাতায় নাম লিখিয়েছেন স্কাই। সেদেশের সবচেয়ে কমবয়সী অলিম্পিয়ান হিসেবে টোকিও অলিম্পিকে যাচ্ছেন ১১ বছর বয়সী এই স্কেটবোর্ডার।

ইউরোপ, এশিয়া ও দক্ষিণ আ'মেরিকায় এরই মধ্যে স্কেটিংয়ে নৈপুণ্য দেখিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন স্কাই। তার এমন কিছু স্কেটিং দক্ষতা আছে যা কোন নারী স্কেটবোর্ডার এর আগে কখনো করে দেখাতে পারেননি।

অলিম্পিকে ভালো করার ব্যাপারে বেশ আশাবাদী ব্রাউন। তিনি বলেন, ‘এক্স গেমসে আমি ফ্রন্টসাইড ৫৪০ করেছি। যা এর আগে কোন মে'য়েই করে দেখাতে পারেনি। সত্যি কথা বলতে আমি এটা চেয়েছি যে, স্কেটিং-এ এমন কিছু করবো যেনো সবাই মনে রাখে।

তিনি আরো যোগ করেন, টোকিও অলিম্পিকে যাওয়ার বিষয়ে আমা'র বাবা-মা প্রথমে সন্দিহান ছিলেন। কারণ তারা চায়নি আমি এত অল্প বয়সে এত চাপ নেই।’

শেষ পর্যন্ত কিভাবে অলিম্পিকে যাওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হলেন ব্রাউন? এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, ‘স্কেটবোর্ডিং এর বস লুসি অ্যাডাম আমাকে আশ্বস্ত করে বললেন, আমা'র এখান থেকে বের হওয়া উচিৎ। অলিম্পিকে যাওয়া উচিৎ। এরপরেই সিদ্ধান্ত নিলাম, আমি নিশ্চয়ই যাবো। আমা'র পরিবারের জন্য হলেও, অলিম্পিকে ভালো কিছু করে দেখাতে চাই আমি।’

Back to top button