মামুনুলের পক্ষে স্ট্যাটাস দিয়ে চাকরি হারালেন ম'সজিদের ই'মাম

বগুড়ার ধুনটে হেফাজতে ইস'লামের নেতা মামুনুল হকের পক্ষে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চাকরি হারিয়েছেন উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জামে ম'সজিদের ই'মাম মুর্শিদুল ইস'লাম। উপজে'লা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক'র্তা ও ম'সজিদ কমিটির সভাপতি হাসানুল হাছিব স্বাক্ষরিত চিঠিতে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়টি আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ওই ই'মামকে জানানো হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মুর্শিদুল ইস'লাম প্রায় ১২ বছর ধরে উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জামে ম'সজিদে ই'মামতি করছেন। এই সূত্রে তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি কোয়ার্টারে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে ৩ এপ্রিল হেফাজতে ইস'লামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মা'ওলানা মামুনুল হককে অব'রুদ্ধ করে রাখা হয়। ওই দিনই ই'মাম মুর্শিদুল ইস'লাম তার নিজের ফেসবুক আইডিতে মামুনুল হকের পক্ষে পোস্ট দেন। বিষয়টি ম'সজিদ পরিচালনা কমিটির লোকজন ও সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের নজরে আসে। পরে বিষয়টি নিয়ে উত্তে'জনা দেখা দেওয়ায় পরিস্থিতি মোকাবিলায় ওই দিনই ম'সজিদ কমিটির পক্ষ থেকে ই'মামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এ নিয়ে গত রবিবার উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা (ইউএনও), ম'সজিদ কমিটির সব সদস্য, স্থানীয় মু'সল্লি ও সরকারি দলের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে ই'মাম মুর্শিদুল ইস'লামকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

এ বিষয়ে মুর্শিদুল ইস'লাম বলেন, ‘হেফাজতে ইস'লামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মা'ওলানা মামুনুল হককে হে'নস্তা করার দৃশ্য দেখে সইতে পারছিলাম না। তাই মামুনুল হকের পক্ষে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। সেই স্ট্যাটাসে সরকারবিরোধী কোনো কথা ছিল না। পরবর্তী সময়ে ভুল বুঝতে পেরে ফেসবুক থেকে সেই স্ট্যাটাস মুছে ফেলে ম'সজিদ কমিটির সদস্যদের কাছে ক্ষমা চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাকে ক্ষমা না করে চাকরিচ্যুত করেছেন।’

ধুনট উপজে'লা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক'র্তা হাসানুল হাছিব বলেন, ‘ম'সজিদ কমিটির সদস্য, উপজে'লা প্রশাসন ও সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মুর্শিদুল ইস'লামকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তাকে সরকারি বাসা ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে।’

Back to top button