বিয়ে করলে যে ভ’য়াবহ রো’গ থেকে মুক্তি মিলবে

বিয়ে হলো একটি সামাজিক বন্ধন। বিয়ের মাধ্যমে বংশবিস্তার ও উত্তরাধিকারের সুযোগ সৃষ্টি হয়। বিয়ের মাধ্যমে পরস্পর স'ম্পর্কিত পুরুষকে স্বামী (পতি) এবং নারীকে স্ত্রী' (পত্নী) হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। স্বামী ও স্ত্রী'র যু'ক্ত জীবনকে দাম্পত্য জীবন হিসাবে অ’ভিহিত করা হয়। বিয়ের ব্যা’প্তি বিশাল। অন্তত চিকিৎসাবিজ্ঞান তো এমনটাই বলছেন। গবেষকদের দাবি, মানুষের স্মৃ’তিশক্তির উপরও রয়েছে বিয়ের প্রভাব।

প্রায় আট’ লাখ মানুষের উপর গবেষণা চালিয়ে লন্ডন ইউনিভা'র্সিটি কলেজের গবেষকরা দেখেছেন, বিয়ে করলে স্মৃ’তিভ্রষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় ৪০ শতাংশ কমে যায়। গবেষক অ্যান্ড্রিউ সামা’রল্যাডের মতে, দীর্ঘদিন বিবাহিত জীবন-যাপনের পর স্ত্রী' বা স্বামী বিয়োগের পরে কিছুটা হলেও বিয়ের সুফল পাওয়া সম্ভব। এক্ষেত্রে অ্যালঝাই'মা’রে আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার সম্ভাবনা ২০ শতাংশ কমে। ভ’য়ংকর বিস্মৃ’তির রো’গ থেকে বাঁচতে হলে অন্যতম দাওয়াই বিয়ে, বলছেন গবেষকরাই।

অনেক সময়ই বিবাহিত দম্পতিদের বলতে শোনা যায়, বিয়ে করেই তাদের যাব’তীয় যোগ্যতা বিলু’প্ত ‘হতে বসেছে। সংসারের হরেক কিসসা মনে রাখতে গিয়ে জ্ঞান, বিজ্ঞান, শিল্প, সংস্কৃতিচর্চার স্মৃ’তি ফিকে হয়ে গিয়েছে। বিয়ে করলে এমনিতেও বেশ কিছু অ'তিরিক্ত দায়িত্ব পালনের ব্যাপার থাকে।

গবেষকরাই বলছেন, নিজের স্মৃ’তিশক্তির উন্নতি করতে হলে বিয়েটা চটপট করে নিলে ক্ষ’তি কিন্তু নেই। বিয়ের ঠেলায় নাকি সংসারের টুকিটাকি বি’ষয়ও খেয়াল থাকে না বলে দাবি করলেও তা মানতে রাজি নন গবেষকরা। তাদের দাবি, বিয়ের লাড্ডু মোটেই স্মৃ’তিনাশক নয়। তবে আ’গু’নকে সাক্ষী রেখে বা আইনিভাবে বিয়ে না হলেও চলবে, দীর্ঘদিনের সহ’বাসকেও এক্ষেত্রে বিয়ের সমতুল বলে ধ’রা হচ্ছে বলে দাবি করছেন বিজ্ঞানীরা।

Back to top button