মহানবী (সা.)-এর সময়ের পবিত্র কোরআনের পাণ্ডুলিপি ব্রিটেনে

পৃথিবীর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহাগ্রন্থ পবিত্র আল কোরআন। কুরআন শব্দের অর্থ: পাঠ করা, যা বার বার পাঠ করা হয়।

শরীআতের পরিভাষায়-আল্লাহ তা‘আলা জিবরাঈল আলাইহিস সালামের মাধ্যমে সুদীর্ঘ ২৩ বছরে মানব জাতির হেদায়াত হিসাবে রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়াসাল্লাম যে কিতাব অবতীর্ণ করেছেন তার নাম আল-কুরআন। এটি অবতীর্ণ হয়েছে বিশ্বমানবতার মুক্তি, সৎ আরসত্যের পথ দেখানোর জন্য।
নতুন খবর হচ্ছে, ব্রিটেনের বার্মিংহামে ২০১৫ সালে পাওয়া যায় পবিত্র ধ'র্মগ্রন্থ কোরআনের সবচেয়ে প্রাচীনতম পাণ্ডলিপি খুঁজে পাওয়া যায়। রেডিওকার্বন পরীক্ষায় জানা যায়, এটি ১৩৭০ বছরের পুরোনো। যে সময় মহানবী হযরত মুহাম্ম'দ (সা) বেঁচে ছিলেন। এটি নিয়ে তখন বেশ শোরগোল হয়েছিল। একই বছর পাণ্ডুলিপিটি জনসাধারণের প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয়। বর্তমানে লিখিত কোরআনের ওই পাণ্ডুলিপিটি বার্মিংহাম ইউনিভা'র্সিটি কর্তৃপক্ষের কাছে আছে।

অক্সফোর্ড ইউনিভা'র্সিটি রেডিওকার্বন এসিলারেটর ইউনিটে বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কাডবারি রিচার্স লাইব্রেরিতে পাওয়া পান্ডুলিপিটির পরীক্ষা করা হয়। এতে দেখা যায়, ৫৬৮ সাল থেকে ৬৪৫ সালের মধ্যে হিজাজি নামে পরিচিত আরবি স্ক্রিপ্টে এটি লেখা হয়েছিল। এতে কোরআনের কয়েকটি সুরাহ রয়েছে।
বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারে প্রায় এক শতাব্দী পাণ্ডুলিপিটি সবার অগোচরে ছিল। মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক নানা বই ও অন্যান্য দলিলের মধ্য থেকে এটি খুঁজে পাওয়া যায়। এ খবর হওয়ার পর ব্রিটেনের গ্রন্থাগার বিশেষজ্ঞ ডা. মুহাম্ম'দ ইসা ওয়ালে বলেছিলেন, এটি খুবই চ'মৎকার আবিষ্কার এবং এ খবর মু'সলমানদের আনন্দিত করবে।

বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিশ্চিয়ানিটি ও ইস'লামের অধ্যাপক ডেভিড টমাস বলেছেন, কোরআনের কিছু কিছু অংশ পার্চ'মেন্ট, পাথর, খেজুরগাছের পাতায় লেখা হয়েছিল।

Back to top button