মেয়র আতিকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ রুবেলের পরিবারের

বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেলের কবর স্থায়ী করার ঘোষণা দেওয়ায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইস'লামের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তার পরিবার। সেই সঙ্গে দেশের সংবাদমাধ্যমের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে রুবেলের পরিবার।

গত ১৯ এপ্রিল দীর্ঘ দিন ব্রেন টিউমা'র ও ক্যান্সারে আ'ক্রান্ত হয়ে মা'রা গেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেল। মৃ'ত্যুর পর ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জানাজা শেষে রুবেলকে দাফন করা হয় বনানী কবরস্থানে। ওই কবরস্থানে কাইকে দাফন করার দুই বছর পর একই জায়গায় নতুন করে কাউকে দাফন করা হয়। তবে আছে কবর স্থায়ী করার পদ্ধতি, সেক্ষেত্রে প্রায় কোটি টাকার মত খরচ হয়। রুবেলের চিকিৎসা করাতে গিয়ে সর্বস্বান্ত হওয়ার পরিবারের স্বভাবতই সেই সাধ্য নেই।

গত ২২ এপ্রিল রুবেলের স্ত্রী' চৈতি ফারহানা রূপা স্বামীর কবর জিয়ারত করতে এসে কবর স্থায়ীকরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী ও মেয়রের কাছে আকুল আবেদন জানান। মানবিক দিক বিবেচনায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন রুবেলের কবর স্থায়ী করার সিদ্ধান্ত নেয়। এই সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় মেয়র আতিক ওম'রা পালনের জন্য সৌদি আরবে অবস্থান করছিলেন। দেশে ফিরে শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রুবেলের বাসায় ছুটে যান তিনি।

এ সময় অশ্রুসিক্ত চোখে রুবেলপত্নী রূপা বলেন, মাননীয় মেয়রের কাছে আমি অসম্ভবরকমের কৃতজ্ঞ। রুবেল মা'রা যাওয়ার পর আসলে আমা'র একটাই চাওয়া ছিল। আমা'র আর কোনো চাওয়া নেই। রুবেলকে যেন আম'রা দেখতে পারি। তার শরীরটা তো ঐখানেই আছে। আম'রা পুরো পরিবার মেয়রের কাছে কৃতজ্ঞ। অনেক ধন্যবাদ জানাতে চাই।

একইসাথে গণমাধ্যমের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে চৈতি আরও বলেন, মেয়র বলেছেন পারিবারিক অ'ভিভাবক হিসেবে উনি থাকবেন সবসময়। আম'রা হয়ত বিসিবিকেও পাশে পাব। আর কোনো চাওয়া নেই আসলে আমা'র। সবার কাছেই আমি কৃতজ্ঞ। গণমাধ্যম খবরটা মেয়রের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন, নাহলে এটা হত না। আপনাদের কাছেও কৃতজ্ঞ।

Back to top button